বিচ্ছেদ

বিচ্ছেদের পর নিজেকে সামলে নিবেন যেভাবে

যেকোনো বিচ্ছেদই কষ্টের। প্রেম হোক বা বিয়ে-সুখের সময় কাটানোর পর হঠাৎ বিচ্ছেদ হলে সেটা মেনে নেওয়া কঠিন। সম্পর্কে বিভিন্ন সময় টানাপোড়েন দেখা দেয়। সব বাঁধা পেরিয়ে নতুন করে জীবনকে এগিয়ে নিয়ে যেতে হয়।

বিচ্ছেদের কষ্ট প্রতিনিয়তই কষ্ট দেয় সবাইকে। ভালোবাসার মানুষকে ভুলে থাকতে অনেকেই বিভিন্ন পথ বেছে নেন। যার কোনোটি ভালো আবার কোনোটি খারাপ। কিন্তু কী করলে অতিদ্রæত মনের কষ্ট ভুলে দুঃখ উপশম হয়, তা অনেকেরই অজানা।

তাই বিচ্ছেদের পর নিজেকে সামলে উঠে কি কি করণীয় এবং ডেইলি রুটিন কী হতে পারে, তা জেনে নেওয়া যাক।

নিজেকে সময় দিন

সম্পর্ক বিচ্ছেদের পর প্রথম যে কাজটি করা উচিত তা হলো, নিজেকে সময় দেওয়া। বিচ্ছেদে কষ্ট হওয়াটা স্বাভাবিক। তাই বাস্তবতা মেনে নিয়ে নিজেকে সামলানোর চেষ্টা করুন। নিজেকে নিয়ে ভাবুন, নিজের ভুলগুলোর কথা মনে করুন। সর্বোপরি নিজেকে আরও নির্ভুল ও শুধরে নেওয়ার চেষ্টা করুন।

নিজের যত্ন নিন

বিচ্ছেদ-পরবর্তী সময়ে নিজের যত্ন নেয়া এবং শুধুমাত্র নিজেকে নিয়েই মনোযোগী হওয়া উচিত। এ সময় পুষ্টিকর খাবার খান এবং দৈনন্দিন শারীরিক ব্যায়াম করার চেষ্টা করুন। তাহলে মন ভালো থাকবে। এ ছাড়া প্রতিদিন পর্যাপ্ত পরিমাণ ঘুম নিশ্চিত করুন।

 নামাজ পড়ুন/ প্রার্থনা করুন
নামাজ বা সৃষ্টিকর্তার কাছে প্রার্থনা মানুষের মনে এক ধরনের প্রশান্তি এনে দেয়। তাই বিচ্ছেদের এই সময়ে বেশি বেশি নামাজ আদায় ও প্রার্থনা করতে পারেন। এতে আপনার মন ও শরীর দুটিই শান্ত থাকবে।

মর্নিং ট্রিবিউনের অফিসিয়াল ফেসবুক লিংক

নিজের ওপর আস্থা রাখুন

বিচ্ছেদের পর নিজের ওপর আস্থা রাখুন, সামনের দিকে যাওয়া সহজ হবে। নিজের পছন্দ অনুযায়ী সাজুন, ঘুরতে যান, খাওয়া দাওয়া করুন। কারও সঙ্গে সম্পর্ক থাকার সময় সে কী পছন্দ করত না করত, সেই ভাবনা ঝেড়ে ফেলুন মাথা থেকে। এমন ছোট ছোট বিষয়ে নিজের ইচ্ছাকে প্রাধান্য দিয়ে দেখুন, হৃদয়ের ক্ষতস্থান পূরণ হতে বেশি সময় লাগবে না।

কৃতজ্ঞ থাকুন

প্রাক্তনের উপর রাগ-ক্ষোভ জমিয়ে না রেখে বরং তার প্রতি কৃতজ্ঞ থাকুন। এতে আপনার মানবিকতা প্রকাশ পাবে। মনে রাখবেন, একটা সময় কিন্তু সে আপনার ভালোবাসার মানুষ ছিলেন। তাই বিচ্ছেদের পর তাকে অসম্মান করবেন না।

সন্তানদের সাথে সময় কাটান

আপনার যদি সন্তান থাকে তাহলে আপনার প্রতিদিনের নতুন রুটিন যতই ব্যস্ত হোক না কেন সন্তানদের অবশ্যই পর্যাপ্ত সময় দিন। প্রতি সপ্তাহে কোন নতুন নতুন স্থানে তাদের ঘুরতে নিয়ে যান। তাদের সাথে খাবার খাওয়ার চেষ্টা করুন। তাদের সাথে মজার কোন খেলা খেলুন। সন্তানদের বুঝান যে আপনার বিচ্ছেদে তাদের কোন দোষ নেই। তাদেরকে একটি সুখী সম্পর্ক দেয়ার চেষ্টা করুন। মোট কথা সন্তানদের সাথে ব্যাস্ত থাকুন, কোন কিছু মনে পরবে না।

আরও পড়ুন

প্রিয় মানুষের সাথে যোগাযোগ করুন

বিচ্ছেদের পর সাধারণত রাগ, দুঃখ এবং ব্যথা অনুভব হবে। তাই পরিবার বা বন্ধু-বান্ধবের মধ্যে প্রিয় কোন মানুষের সাথে দেখা করুন এবং তার কাছে মনের সব কথা খুলে বলুন। বিশেষ করে শৈশব-কৈশোরের বন্ধুদের সাথে যোগাযোগ করার চেষ্টা করুন এবং পুরনো দিনের মজার স্মৃতি মনে করুন। এতে করে মন হালকা হবে।

ক্যারিয়ার ও কাজে মনোযোগ দিন

বিচ্ছেদ ঘটলে দুঃখের সাগরে ভেসে গিয়ে নিয়মিত জীবন এলোমেলো করাটা বুদ্ধিমানের কাজ নয়। নিজেকে সামলে নিয়ে ক্যারিয়ার ও নিজের কাজে মন দেওয়া অতি জরুরি। কারণ জীবন থেমে থাকে না কারোরই জন্য। ভালোবাসার মানুষটি নেই বলে জীবনের প্রতিযোগিতা থেকে নিজেকেও পিছিয়ে রাখা যাবে না। বরং আরও উন্নত করতে হবে নিজের ক্যারিয়ার।

খারাপ অভ্যাসকে না বলুন

বিচ্ছেদের দুঃখ ভুলতে অনেকেই মাদক বা অ্যালকোহলের নেশায় বুঁদ হয়ে পরে। কিন্তু এসব করে নিজের সর্বনাশ ডেকে আনা হয়। আর তাই অ্যালকোহল, তামাক, নিকোটিন বা সিগারেটসহ সব ধরনের মাদক থেকে নিজেকে দূরে রাখুন। এসব আপনাকে দুঃখ থেকে মুক্তি তো দেবেই না, বরং শরীরের বড় ক্ষতি করবে।

নতুন রুটিন চেষ্টা করুন

একাকীত্বের অনুভ‚তি এবং অন্যান্য অবাঞ্ছিত আবেগের বিরুদ্ধে লড়াই করতে নিজের প্রতিদিনের রুটিন পরিবর্তন করতে পারেন। বারান্দায় গাছ লাগানো, খাঁচায় পাখি পালন, ঘরে অ্যাকুরিয়াম রাখা এবং এগুলোর যত্ন নিয়ে নিজের সময় কাটানো যেতে পারে। অথবা বিকেলে বারান্দায় চা নিয়ে বা পছন্দের বই নিয়ে বসা বা পেইন্ট করা। অর্থাৎ প্রতিদিন একটি সময় রেখে দিন নিজের জন্য।

Leave a Comment

Your email address will not be published.