বিক্ষোভে ২ শতাধিক মানুষের মৃত্যু, স্বীকার করল ইরান

আন্তর্জাতিক ডেস্ক

মাসা আমিনিকে হত্যার প্রতিবাদে গত সেপ্টেম্বর থেকে ইরানে শুরু ব্যাপক বিক্ষোভ। প্রচণ্ড অস্থিরতায় ইরানজুড়ে দুই শতাধিক মানুষ নিহত হয়েছে বলে স্বীকার করেছে ইরান সরকার।

আল-জাজিরা জানায়, প্রথমবারের মতো এই বিক্ষোভে নিহতদের সংখ্যা নিয়ে কথা বলল ইরানের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের নিরাপত্তা পরিষদ। তবে শনিবার (৩ ডিসেম্বর) ইরানের প্রেসিডেন্ট ইব্রাহিম রাইসি বলেছেন, ইসলামি প্রজাতন্ত্র ইরান নাগরিকদের অধিকার ও স্বাধীনতার নিশ্চয়তা দিচ্ছে। তিনি দেশটির বর্তমান শাসনকাঠামোর পক্ষেও তার মত তুলে ধরেছেন।

শনিবার প্রকাশিত এক বিবৃতিতে ইরানের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের রাষ্ট্রীয় নিরাপত্তা পরিষদ তার প্রথম মৃতের সংখ্যা দিয়েছে যেটি ‘দাঙ্গার’ ফলে এসেছে বলে জানিয়েছে।

এতে বলা হয়েছে, নিহতদের মধ্যে নিরাপত্তা বাহিনী, যারা ‘সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডে’ নিহত হয়েছে। নিহতদের মধ্যে নিরাপত্তা বাহিনীর সদস্যরাও রয়েছে। যারা সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড প্রতিহত করতে গিয়ে নিহতের শিকার হন।

নিরাপত্তা সংস্থাটি নিরাপরাধ মানুষ যারা নিরাপত্তা বিশৃঙ্খলার পরিস্থিতিতে মারা গেছেন তাদের উদ্ধৃত করেছে কিন্তু কিভাবে তাদের হত্যা করা হয়েছে তা প্রকাশ করেনি। আল জাজিরা তাদের খবরে এ কথা উল্লেখ করেছে।

অন্যদিকে, রয়টার্স এই পরিস্থিতি সম্পর্কে উল্লেখ করে, রাষ্ট্রপতি ইব্রাহিম রাইসি শনিবার ইরানের ইসলামিক প্রজাতন্ত্রকে অধিকার ও স্বাধীনতার গ্যারান্টার হিসেবে স্বাগত জানিয়েছেন।

নিরাপত্তা বাহিনীর এ ঘোষণার পর ইরানের ইসলামি রেভুলেশনারি গার্ড ক্রপস (আইআরজিসি) এর একজন উচ্চ পর্যায়ের জেনারেল আমিন আলি হাজিজাদে বলেন, বিক্ষোভে প্রায় ৩০০ জন মানুষ প্রাণ হারিয়েছেন।

তবে ইরান যে মৃতের সংখ্যা প্রকাশ করেছে তা আন্তর্জাতিক সংস্থার দেয়া তথ্যের চেয়ে অনেক কম।

গত সেপ্টেম্বরে পুলিশ হেফাজতে মাহশা আমিনির মৃত্যুর অভিযোগে ইরানে বিক্ষোভ শুরু হয়। ২২ বছর বয়সী মাহশা আমিনি যথাযথভাবে ধর্মীয় পোশাক না পড়ায় তাকে দেশটি নৈতিক পুলিশ তাকে গ্রেপ্তার করে।

ইরান এই বিক্ষোভের পেছনে যুক্তরাষ্ট্র, ইসরায়েল, যুক্তরাজ্য এবং সৌদি আরবের ষড়যন্ত্রকে দায়ী করেছেন।

বিক্ষোভগুলো সমাজের সব স্তরের ক্ষুব্ধ ইরানিদের দ্বারা একটি বিদ্রোহে পরিণত হয়েছে. যা ১৯৭৯ সালের বিপ্লবের পর থেকে যাজক নেতৃত্বের কাছে সবচেয়ে সাহসী চ্যালেঞ্জের মধ্যে একটি।

Leave a Comment

Your email address will not be published.